Lord of the Flies by William Golding Bangla - English Summary, Themes, Characters and Review PDF

0

Lord of the Flies by William Golding Bangla - English Summary, Themes, Characters and Review PDF

M.A Final Year
Department of English
Course Name: Modern Novel
Life & Work of William Golding
Topics: Lord of Flies
Bangla & English, Characters, Summary And Critical Review
Lord of the Flies by William Golding Bangla - English Summary, Themes, Characters and Review

(toc)

Lord of the Flies by William Golding

Type of Work.

'The Lord of the Flies' একটি রূপকধর্মী উপন্যাস, একটি সাহিত্য কর্ম যেখানে চরিত্ররা, ঘটনা, অনুভূতি কিংবা বস্তুগুলোর প্রতীকি কিংবা বলা যায় দ্বিতীয় অর্থ রয়েছে। The Lord of the Flies এ দ্বীপটিতে যেখানে একটি বিমান ভূপাতিত হয়েছে যার উপর ছেলেগুলো অসহায় মূলত তা সমগ্র দুনিয়াকেই বোঝায়। বালকগুলো নিজেদেরকে দ্বারা প্রাপ্ত বয়স্ক সভ্যতার প্রতিনিধিত্ব করে। যে সংঘর্ষ তাদেরকে পৃথক পৃথক দলে ভাগ করেছে তা মূলত ঐ সংঘর্ষকে চিত্রায়িত করে যা প্রাপ্ত বয়স্ক পৃথিবীতে যুদ্ধ বয়ে আনে ।

Date of Publication and Source:

The Lord of the Flies' ১৯৫৪ সালে প্রকাশিত হয়। উপন্যাসটি লিখার সময় গোল্ডিং তার নিজের অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগান যা তিনি দ্বিতীয় স্বপ্ন যুদ্ধের সময় একজন ব্রিটিশ নৌবাহিনীর অফিসার হিসেবে অর্জন করেন। তিনি ১৮৫৮ সালে প্রকাশিত Robert M. Ballyantyne এর The Coral Bland' এর উপর ভিত্তি করে তার উপন্যাসের বেশির ভাগ প্লট এবং অনেকগুলো চরিত্রকে রূপদান করেন।

রবার্টের গল্প তিনজন ব্রিটিশ নাগরিকদের দুঃসাহসিক কাজের স্মৃতির বর্ণনা দেয়। তারা একটি ধ্বংসপ্রাপ্ত জাহাজে টিকে থাকে এবং একটি জনমানবহীন দ্বীপে তারা তাদের নিজেদের একটি ছোট বসতি গড়ে তোলে যেখানে শূকরের আধিপত্য বিরাজমান ছিল।

Setting:

নাট্যক্রিয়াটি সাউথ প্যাসিফিকের একটি ছোট শৈবাল দ্বীপে সংঘটিত হয়। একটি যুদ্ধের সময় যেখানে কিনা একটি রাসায়নিক বোমা বিস্ফোরণ করানো হয়। দ্বীপের আবহাওয়া অত্যন্ত গরম এবং আলোকিত। যদিও দ্বীপটিতে আগে কেউ বসবাস করেনি যাতে বালকগুলো ব্যথিত তবুও এই দ্বীপে টিকে থাকার জন্য যতগুলো উপাদান লাগে তার সবই রয়েছে। উদাহরণ স্বরূপ ফল, খাবার পানি, খেলাধূলা ইত্যাদি। দ্বীপটি যা কিনা একটি নৌকার আকৃতির তার একটি বন, দুটো ছোট ছোট পাহাড়, বালুময় সৈকত রয়েছে।

এই উপন্যাসের শিরোনামটি একটি হিব্রু শব্দ, “Baal zevuv", এর বঙ্গানুবাদ হতে নেয়া হয়েছে যার অর্থ দাঁড়ায় প্রধান বা স্যাটার্ন। গ্রিক ভাষায় শব্দটি “Beelzeboub"। গ্রিক শব্দটি হতে একটি ইংরেজি শব্দ নেয়া হয় যার বাংলা অর্থ দাঁড়ায় প্রধান শয়তান অথবা সহকারী শয়তান, প্রধান শয়তানের পরবর্তী শয়তান।

Historical Information of the Novel:

'Lord of the Flies' দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ শেষ হবার পর পরই ১৯৫৪ সালে প্রকাশিত হয়। একজন ব্রিটিশ নাগরিক হিসেবে গোল্ডিং যুদ্ধের ভয়াবহতা, নিষ্ঠুরতা সম্পর্কে খুব ভালভাবেই ওয়াকিবহাল ছিলেন। যুদ্ধে ইংল্যান্ডে খুব ভালভাবেই আক্রমণ করা হয় এবং তার নাগরিকরা ধ্বংসের ভয়াবহতা নিয়ে চিন্তিত ছিল। যে সময়টাতে উপন্যাসটি লিখা হয় তখন কেবল রাসায়নিক বোমা বিস্ফোরিত হয় এবং সমস্ত বিশ্বে বিরাজমান ছিল থমথমে অবস্থা এই যুদ্ধ শুরুর ফলে বিশেষত রাশিয়ান আগ্রাসনের ফলে।

About the Title:

গোল্ডিং তার উপন্যাস শুরু করেন ইংল্যান্ডের একটি রাসায়নিক যুদ্ধের স্পট হতে বাচ্চাদেরকে দৃশ্য দিয়ে। যুদ্ধের ভয়াবহতা, নিষ্ঠুরতা হতে শিশুদেরকে দূরে রাখার দরকার ছিল। হাস্যকরভাবে তারা তাদের স্বর্গে অর্থাৎ দ্বীপে একটা স্তর পর্যন্ত মানবতার পতন দেখেছে; নিজেদেরকে যুদ্ধের চিত্র দিয়ে রাঙ্গিয়েছে। উপন্যাসের শেষের দিকে একজন নৌ অফিসারের দ্বারা বাচ্চাগুলোকে বাঁচান হয় তাও একটি যুদ্ধক্ষেত্র হতে যা কিনা যুদ্ধের তথা মানুষের নিষ্ঠুরতার চলমানতাকেই বোঝায়, চিত্রায়িত করে।

Content of the Novel:

যখন ‘Lord of the Flies' প্রথম প্রকাশিত হয় তখন বিশ্ব কেবল দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের দ্বারা সংঘটিত জীবন ও সম্পদের যে ক্ষয়-ক্ষতি হয় তা হতে বের হয়ে আসতে শুরু করে। সামরিক এবং বেসামরিকদের মধ্যে সংঘটিত সে যুদ্ধে ষাট মিলিয়ন লোক জড়িত ছিল বলে মনে করা হয়। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ শেষ হতে না হতেই বিশ্ব আবার শায়ু যুদ্ধের সাক্ষী হয়। এ যুদ্ধ সাম্যবাদীর রাশিয়ার দ্বারা পরিচালিত হয় যা কিনা ১৯১৭ সালের পর একটি সমাজতান্ত্রিক রাষ্ট্রব্যবস্থা গড়ে তোলে। সমাজতন্ত্র সম্পদের একট সাধারণ মালিকানা নিশ্চিত করে যেখানে বেশি বেশি কোন কিছু পাওয়ার ইচ্ছাকে নিয়ন্ত্রণ করা হয়।

অপর পক্ষে, কমিউনিস্টদের কাজই ছিল বেশি। বেশি অঞ্চল দখল করার মাধ্যমে আধিপত্যবাদ বিস্তার করা। পশ্চিমের পুঁজিবাদীরা যারা কিনা আমেরিকার দ্বারা পরিচালিত হত তারা কমিউনিস্টদেরকে ভয় পেতে থাকে। দুটো শক্তিশালী দেশের কাছেই রাসায়নিক বোমা থাকায় স্নায়ু যুদ্ধের সময়টা একটি চাপের সময় গেছে। এই দুটো ঐতিহাসিক সংঘৰ্ষই মূলত 'Lord of the Flies' এর পটভূমি হিসেবে কাজ করে।

Major Characters (English)

Ralph

The protagonist of the story, Ralph is one of the oldest boys on the island. He quickly becomes the group's leader. Golding describes Ralph as tall for his age and handsome, and he presides ove
r the other boys with a natural sense of authority. Although he lacks Piggy's overt intelligence, Ralph is calm and rational, with sound judgment and a strong moral sensibility. But he is susceptible to the same instinctive influences that affect the other boys, as demonstrated by his contribution to Simon's death. Nevertheless, Ralph remains the most civilized character throughout the novel. With his strong commitment to justice and equality, Ralph represents the political tradition of liberal democracy.

Piggy

Although pudgy, awkward, and averse to physical labor because he suffers from asthina, Piggy--who dislikes his nickname-is the intellectual on the island. Though he is an outsider among the other boys, Piggy is eventually accepted by them, albeit grudgingly, when they discover that his glasses can be used to ignite fires. Piggy's intellectual talent endears him to Ralph in particular, who comes to admire and respect him for his clear focus on securing their rescue from the island. Piggy is dedicated to the ideal of civilization and consistently reprimands the other boys for behaving as savages. His continual clashes with the group culminate when Roger murders Piggy by dropping a rock on him, an act that signals the triumph of brute instinct over civilized order. Intellectual, sensitive, and conscientious, Piggy represents culture within the democratic system embodied by Ralph. Piggy's nickname symbolically connects him to the pigs on the island, who quickly become the targets of Jack's and his hunters' bloodlust-an association that foreshadows his murder.

Jack Merridew

The leader of a boys' choir, Jack exemplifies militarism as it borders on authoritarianism. He is cruel and sadistic, preoccupied with hunting and killing pigs. His sadism intensifies throughout the novel, and he eventually turns cruelly on the other boys. Jack feigns an interest in the rules of order established on the island, but only if they allow him to inflict punishment. Jack represents anarchy. His rejection of Ralph's imposed order--and the bloody results of this act-indicate the danger inherent in an anarchic system based only on self-interest.

Simon

The most introspective character in the novel, Simon has a deep affinity with nature and often walks alone in the jungle. While Piggy represents the cultural and Ralph the political and moral facets of civilization, Simon represents the spiritual side of human nature. Like Piggy, Simon is an outcast: the other boys think of him as odd and perhaps insane. It is Simon who finds the beast. When he attempts to tell the group that it is only a dead pilot, the boys, under the impression that he is the beast, murder him in a panic. Golding frequently suggests that Simon is a Christ-figure whose death is a kind of martyrdom. His name, which means "he whom God has heard," indicates the depth of his spirituality and centrality to the novel's Judeo- Christian allegory.

Sam and Eric

The twins are the only boys who remain with Ralph and Piggy to tend to the fire after the others abandon Ralph for Jack's tribe. The others consider the two boys as a single individual, and Golding preserves this perception by combining their individual names into one ("Samneric"). Here one might find suggestions about individualism and human uniqueness.

Roger

One of the hunters and the guard at the castle rock fortress, Roger is Jack's equal in cruelty. Even before the hunters devolve into savagery, Roger is boorish and crude, kicking down sand castles and throwing sand at others. After the other boys lose all idea of civilization, it is Roger who murders Piggy.

Maurice

During the hunters' "Kill the pig" chant, Maurice, who is one of Jack's hunters, pretends to be a pig while the others pretend to slaughter him. When the hunters kill a pig, Jack smears blood on Maurice's face. Maurice represents the mindless masses.

Percival

One of the smallest boys on the island, Percival often attempts to comfort himself by repeating his name and address as a memory of home life. He becomes increasingly hysterical over the course of the novel and requires comforting by the older boys. Percival represents the domestic or familial aspects of civilization; his inability to remember his name and address upon the boys rescue indicates the erosion of domestic impulse with the overturning of democratic order. Note also that in the literary tradition, Percival was one of the Knights of the Round Table who went in search of the Holy Grail.

The Beast

A dead pilot whom Simon discovers in the forest. The other boys mistake him as a nefarious supernatural omen, "The Beast." They attempt to appease his spirit with The Lord of the Flies.

The Lord of the Flies

 The pig's head that Jack impales on a stick as an offering to "The Beast." The boys call the offering "The Lord of the Flies," which in Judeo-Christian mythology refers to Beelzebub, an incarnation of Satan. In the novel, The Lord of the Flies functions totemically; it represents the savagery and amorality of Jack's tribe.

Naval Officer

The naval officer appears in the final scene of the novel, when Ralph encounters him on the beach. He tells Ralph that his ship decided to inspect the island upon seeing a lot of smoke (the outcome of the forest fire that Jack and his tribe had set in the hopes of driving Ralph out of hiding). His naivete about the boys' violent conflict-he believes they are playing a game- -underscores the tragedy of the situation on the island. His status as a soldier reminds the reader that the boys' behavior is just a more primitive form of the aggressive and frequently fatal conflicts that characterize adult civilization.

English Summary (ইংরেজি সামারি বা সারমর্ম)

During an unnamed time of war, a plane carrying a group of British schoolboys is shot down over the Pacific. The pilot of the plane is killed, but many of the boys survive the crash and find themselves deserted on an uninhabited island, where they are alone without adult supervision. The first two boys introduced are the main protagonists of the story: Ralph is among the oldest of the boys, handsome and confident, while Piggy, as he is derisively called, is a pudgy asthmatic boy with glasses who nevertheless possesses a keen intelligence. Ralph finds a conch shell, and when he blows it the other boys gather together. Among these boys is Jack Merridew, an aggressive boy who marches at the head of his choir. Ralph, whom the other boys choose as chief, leads Jack and another boy, Simon, on an expedition to explore the island. On their expedition they determine that they are, in fact, on a deserted island and decide that they need to find food. The three boys find a pig, which Jack prepares to kill but finally balks before he can actually stab it.

When the boys return from their expedition, Ralph calls a meeting and attempts to set rules of order for the island. Jack agrees with Ralph, for the existence of rules means the existence of punishment for those who break them, but Piggy reprimands Jack for his lack of concern over long-term issues of survival. Ralph proposes that they build a fire on the mountain which could signal their presence to any passing ships. The boys start building the fire, but the younger boys lose interest when the task proves too difficult for them. Piggy proves essential to the process: the boys use his glasses to start the fire. After they start the fire, Piggy loses his temper and criticizes the other boys for not building shelters first. He worries that they still do not know how many boys there are, and he believes that one of them is already missing.

While Jack tries to hunt pigs, Ralph orchestrates the building of shelters for the boys. The smallest boys have not helped at all, while the boys in Jack's choir, whose duty is to hunt for food, have spent the day swimming. Jack tells Ralph that he feels as if he is being hunted himself when he hunts for pigs. When Simon, the only boy who has consistently helped Ralph, leaves presumably to take a bath, Ralph and Jack go to find him at the bathing pool. But Simon instead is walking around the jungle alone. He finds a serene open space with aromatic bushes and flowers.

The boys soon settle into a daily pattern on the island. The youngest of the boys, known generally as the "littluns," spend most of the day searching for fruit to eat. When the boys play, they still obey some sense of decency toward one another, despite the lack of parental authority. Jack continues to hunt, while Piggy, who is accepted as an outsider among the boys, considers building a sundial. A ship passes by the island but does not stop, perhaps because the fire has burned out. Piggy blames Jack for letting the fire die, for he and his hunters have been preoccupied with killing a pig at the expense of their duty, and Jack punches Piggy, breaking one lens of his glasses. Jack and the hunters chant, "Kill the pig. Cut her throat. Bash her in" in celebration of the kill, and they perform a dance in which Maurice pretends to be a pig and the others pretend to attack him.

Ralph becomes concerned by the behavior of Jack and the hunters and begins to appreciate Piggy's maturity. He calls an assembly in which he criticizes the boys for not assisting with the fire or the building of the shelters. He insists that the fire is the most important thing on the island, for it is their one chance for rescue, and declares that the only place where they thould have a fire is on the mountaintop. Ralph admits that he is frightened but says that there is no legitimate reason to be afraid. Jack then yells at the liluns for their fear and for not helping with hunting or building shelters.

He proclaims that there is no beast on the island, as some of the boys believe, but then a littlun, Phil, tells that he had a nightmare and when he awoke saw something moving among the trees. Simon says that Phil probably saw Simon, for he was walking in the jungle that night. But the littluns begin to worry about the beast, which they conceive as a ghost or a squid. Piggy and Ralph fight once more, and when Ralph attempts to assert the rules of order, Jack asks rhetorically whether anyone cares about the rules. Ralph in turn insists that the rules are all that they have. Jack then decides to lead an expedition to hunt the beast, leaving only Ralph, Piggy and Simon behind. Piggy warns Ralph that if Jack becomes chief, the boys will never be rescued.

That night, during an aerial battle, a pilot parachutes down the island. The pilot dies, possibly on impact. The next morning, as the twins Sam and Eric are adding kindling to the fire, they spot the pilot and mistake him for the beast. They scramble down the mountain and wake up Ralph. Jack calls for a hunt, but Piggy insists that they should stay together, for the beast may not come near them. Jack claims that the conch is now irrelevant. He takes a swing at Ralph when Ralph accuses Jack of not wanting to be rescued. Ralph decides to join the hunters on their expedition to find the beast. despite his wish to rekindle the fire on the mountain. When they reach the other side of the island, Jack expresses his wish to build a fort near the sea.

The hunters, while searching for the beast, find a boar that attacks Jack, but Jack stabs it and it runs away. The hunters go into a frenzy, lapsing into their "kill the pig" chant once again. Ralph realizes that Piggy remains with the littluns back on the other side of the island, and Simon offers to go back and tell Piggy that the other boys will not be back that night. Ralph realizes that Jack hates him and confronts him about that fact. Jack mocks Ralph for not wanting to hunt, claiming that it stems from cowardice, but when the boys see what they believe to be the beast they run away.

Ralph returns to the shelters to find Piggy and tells him that they saw the beast, but Piggy remains skeptical. Ralph dismisses the hunters as boys with sticks, but Jack accuses him of calling his hunters cowards. Jack attempts to assert control over the other boys, calling for Ralph's removal as chief, but when Ralph retains the support of the other boys Jack runs away, crying. Piggy suggests that, if the beast prevents them from getting to the mountaintop, they should build a fire on the beach, and reassures them that they will survive if they behave with common sense. Simon leaves to sit in the open space that he found earlier. Jack claims that he will be the chief of the hunters and that they will go to the castle rock where they plan to build a fort and have a feast. The hunters kill a pig, and Jack smears the blood over Maurice's face. They then cut off the head and leave it on a stake as an offering for the beast. Jack brings several hunters back to the shelters, where he invites the other boys to join his tribe and offers them meat and the opportunity to hunt and have fun. All of the boys, except for Ralph and Piggy, join Jack.

Meanwhile, Simon finds the pig's head that the hunters had left. He dubs it The Lord of the Flies because of the insects that swarm around it. He believes that it speaks to him, telling him how foolish he is and that the other boys think he is insane. The pig's head claims that it is the beast, and it mocks the idea that the beast could be hunted and killed. Simon falls down and loses consciousness. After he regains consciousness and wanders around, he sees the dead pilot that the boys perceived to be the beast and realizes what it actually is. He rushes down the mountain to alert the other boys about what he has found.

Ralph and Piggy, who are playing at the lagoon alone, decide to find the other boys to make sure that nothing unfortunate happens while they are pretending to be hunters. When they find Jack, Ralph and Jack argue over who will be chief. When Piggy claims that he gets to speak because he has the conch, Jack tells him that the conch does not count on his side of the island. The boys panic when Ralph warns them that a storm is coming. As the storm begins, Simon rushes from the forest, telling about the dead body on the mountain. Under the impression that he is the beast, the boys descend on Simon and kill him.

Back on the other side of the island, Ralph and Piggy discuss Simon's death. They both took part in the murder, but they attempt to justify their behavior motivated by fear and instinct. The only four boys who are not part of Jack's tribe are Ralph and Piggy and the twins, Sam and Eric, who help tend to the fire. At Castle Rock, Jack rules over the boys with the trappings of an idol. He has kept one boy tied up, and he instills fear in the other boys by warning them about the beast and the intruders. When Bill asks Jack how they will start a fire, Jack claims that they will steal the fire from the other boys. Meanwhile, Ralph, Piggy and the twins work on keeping the fire going but find that it is too difficult to do by themselves. They return to the shelters to sleep. During the night, the hunters attack the four boys, who fight them off but suffer considerable injuries. Piggy learns the purpose of the attack: they came to steal his glasses.

After the attack, the four boys decide to go to the castle rock to appeal to Jack as civilized people. They groom themselves to appear presentable and dress themselves in normal schoolboy clothes. When they reach Castle Rock, Ralph summons the other boys with the conch. Jack arrives from hunting and tells Ralph and Piggy to leave them alone. When Jack refuses to listen to Ralph's appeals to justice, Ralph calls the boys painted fools. Jack takes Sam and Eric as prisoners and orders them to be tied up. Piggy asks Jack and his hunters whether it is better to be a pack of painted Indians or sensible like Ralph, but Roger tips a rock over on Piggy, causing him to fall down the mountain to the beach. The impact kills him and, to the delight of Jack, shatters the conch shell. Jack declares himself chief and hurls his spear at Ralph, who runs away.

Ralph hides near Castle Rock, where he can see the other boys, whom he no longer recognizes as civilized English boys but as savages. He crawls to the entrance of Jack's camp, where Sam and Eric are now stationed as guards. and they give him some meat and urge him to leave. While Ralph hides, he realizes that the other boys are rolling rocks down the mountain. Ralph evades the other boys who are hunting for him, then realizes that they are setting the forest on fire in order to smoke him out-and thus will destroy whatever fruit is left on the island.

Running for his life, Ralph finally collapses on the beach, where a naval officer has arrived with his ship. He thinks that the boys have only been playing games, and he scolds them for not behaving in a more organized and responsible manner as is the British custom. As the boys prepare to leave the island for home, Ralph weeps for the death of Piggy and for the end of the boys' innocence.

Major Characters (বাংলায়)

Ralph:

একজন বার বছর বয়স্ক সুন্দর চুলের অধিকারী সুদর্শন বালক রাফ। সে একজন জন্মগত নেতা এবং মহিলা অফিসারের ছেলে। শুরুতে একজন নির্বাচিত বালকদের নেতা হিসেবে সে যৌক্তিক এবং স্বচ্ছ থাকার চেষ্টা করে। এমনকি যখন সবগুলো বালক তাকে পরিত্যাগ করে এরপর সবাই তার যৌক্তিকতা অনুসরণ করার চেষ্টা করত। ব্রিটিশ উচ্চারণে তার নাম হবে "Rate",

Jack Merridew:

একজন আত্মকেন্দ্রিক বার বছর বয়সের বালক যাকে রালফের বৈসাদৃশ্য মনে করা হয়। একই সাথে আবেগ প্রবণ ও উগ্র হওয়ার পাশাপাশি সে লম্বা, চিকন এবং লাল চুলের অধিকারী একটি ছেলে। বইয়ের শুরুতে সে গায়ক দলের নেতা ছিল কিন্তু সে প্রধান হতে চায়। যখন সে নিজে দল গঠন করে সে বালকগুলোকে শিকারী এবং উৎশৃঙ্খল করে ফেলে।

Piggy:

রানফের একজন বন্ধু যে শেষ পর্যন্ত তাকে সমর্থন জানায়। সে খাটো, মোটা, শারীরিকভাবে অযোগ্য, কদাকার এবং হাঁপানি রোগে ভোগা রোগী। সাথে সাথে সে একজন অনাথ। সে সরু চশমা পড়ে যা ছাড়া সে প্রায় অন্ধ। যদিও সে সবচেয়ে বেশি যৌক্তিক এবং আবেগপ্রবণ দলের মধ্যে তবুও সবাই বিশেষ করে জ্যাক তাকে নিয়ে হাসি-তামাসা করে। নাটকের শেষের দিকে রজার তাকে হত্যা করে ।

Symon:

সাইমন একজন ছোট, ভিরু, চর্মসার বালক তার মোটা সোজা চুলের সাথে। সে সবকিছু নিজের মধ্যে রাখে, জিনিস নিয়ে গভীরভাবে চিন্তা করে, একা একা জঙ্গলে ঘুরে এবং অন্যান্যদের সাথে যোগাযোগে তার সমস্যা রয়েছে। সে মৃত এয়ার ম্যানকে আবিষ্কার করে থাকে অন্যরা যাকে পশু ভেবেছিল। সে যখন পশুটিকে ব্যাখ্যা দিয়ে বোঝাতে চেয়েছিল ভুল বুঝে তাকে হত্যা করা হয়। তাকে ক্রিস্টের মত সত্ত্বা হিসেবে উপস্থাপন করা হয়েছে।

Bangla Summary (বাংলা সারমর্ম, সামারি বা সারাংশ)

যুদ্ধের একটি নামহীন সময়ে একটি বিমান ব্রিটিশ কিছু স্কুল বালককে বহন করছিল। প্রশান্ত মহাসাগরের উপর দিয়ে তাদেরকে নিয়ে আসার সময় তাদেরকে গুলি করা হয়। পাইলট মারা যায় কিন্তু অনেকগুলো ছেলে নিজেদেরকে একটি বসবাসহীন দ্বীপে নিজেদেরকে জীবিতভাবে নিজেরাই উদ্ধার করে। সেখানে তাদের তদারকি করার জন্য প্রাপ্ত বয়স্ক কেউ ছিল না। প্রথম যে দুজন ছেলেকে পরিচিত করা হয় তারাই প্রধান দুই চরিত্র এই উপন্যাসের। রালফ বালদের মধ্যে সবচেয়ে বড় এবং সুদর্শন ও যথেষ্ঠ আত্মবিশ্বাসী। যেখানে পিগী হচ্ছে মোটা, শ্বাস কষ্টে ভোগা একটা ছেলে যে চশমা ছাড়া কিছুই দেখে না তবুও অনেক মেধাবী। রালফ একটি শঙ্খের খোলস পায় এবং সে যখন এতে ফুঁ দেয় অন্য সবাই একত্রিত হয়। এই বালকগুলোর মধ্যে জ্যাক মেরিডিউ একজন যে স্বভাবে অত্যন্ত উগ্র সে তার গানের দলের সম্মুখ দিকে অগ্রসর হয়।

রালফ যাকে সবাই প্রধান হিসাবে নির্বাচিত করেছে সে সবাইকে নিয়ে এই দ্বীপটি পর্যবেক্ষণে বেরিয়েছে। যাত্রাকালে তারা নিশ্চিত হয় যে, তারা একটি নির্জীব দ্বীপে আছে আর তাই যেভাবেই হোক তাদের খাবার সংগ্রহ করতে হবে। তিনজন বালক একটি শূকর পায় যাকে হত্যার জন্য জ্যাক প্রস্তুতি নেয় কিন্তু সে ছুরি মারতে দেরী করে ফেলে।

তারা যখন যাত্রা হতে ফিরে আসে রালফ সভা ডাকে যেন তারা নির্জীব এই দ্বীপে আইন-শৃংখলা আনতে পারে। জ্যাক রালফের সাথে সম্মত হয় এও বলে যে, যারা নিয়ম ভঙ্গ করবে তার ফলে তারা শাস্তির সম্মুখীন হবে কিন্তু পিগী দ্বিমত পোষণ করে এবং জ্যাককে বলে যে, দীর্ঘ দিনের অস্তিত্বের ব্যাপারে জ্যাকের জ্ঞানের অভাব আছে (রালফ জানায় যে, তারা পর্বতের উপর একটি আগুণ তৈরি করবে যা তাদের উপস্থিতির কথা এদিক দিয়ে কোন জাহাজ গেলে তাদেরকে তা জানান দিবে)।

বালকরা আগুন তৈরির কাজ শুরু করে কিন্তু ছোট ছেলেরা তা কষ্টের কাজ দেখে হতাশ হয়ে যায় পিগী ধারাটাকে জরুরী হিসেবে প্রমাণিত করে। বালকেরা তার চশমা ব্যবহার করে আগুন তৈরিতে। পরবর্তীতে আগুন তৈরি হয়ে গেলে পিগী সবার সমালোচনা করে আগে আশ্রয় তৈরি না করায়। সে দুশ্চিন্তা করে তারা এখনো জানে না তারা কতজন বালক এখানে এবং সে বিশ্বাস করে যে একজন ইতিমধ্যে হারিয়ে গেছে।

যখন জ্যাক শূকর শিকারের চেষ্টা করছিল রালফ বালকদের জন্য ভবনটিকে আশ্রয় হিসেবে সুসংহত করে। ছোট বালকরা মোটেই সাহায্য করেনি। অন্যদিকে জ্যাকের দলের যেসব বালকদের কাজ ছিল খাদ্য সংগ্রহ করা তারা সমস্ত দিন সাঁতার কেটে কাটিয়েছে। জ্যাক রালফকে জানায় যে, যখন সে শূকর শিকার করছিল মনে হচ্ছিল সে নিজে নিজেকে শিকার করছে। যখন সাইমন যে কিনা একমাত্র বালক যে সর্বদা রালফকে কাজে সাহায্য করেছে সে গোসলে চলে গেলে রালফ এবং জ্যাক তাকে খোজার জন্য গোসলের পুলে যায়। কিন্তু সাইমন একা জঙ্গলের দিকে হাঁটতেছিল। সে একটি নির্মেঘ খোলা জায়গা খুঁজে পায় যেখানে কিনা সৌরভযুক্ত ঝোঁপ ছিল।

খুব শীঘ্রই বালকেরা একটি দৈনিক প্যাটার্নে দ্বীপে জায়গা করে নেয়। বালকদের মধ্যে সবচেয়ে ছোট বালকটি সারাদিন ফল খুঁজে বেরিয়েছে খাওয়ার জন্য। পৈতৃক কর্তৃত্বের অভাব থাকা সত্ত্বেও বালকরা যখন খেলাধূলা করে একে অপরের প্রতি সৌজন্যতা, শ্রদ্ধা প্রকাশ করে। জ্যাক শূকর শিকার চলমান রাখে। দ্বীপের কাছ দিয়ে একটি জাহাজ চলে গেছে কিন্তু থামেনি হয়ত আগুন সবটা পুড়ে গেছে। পিগী জ্যাককে আগুনের সবটা মরে যাবার জন্য দোষারোপ করে তাতে জ্যাক পিগীর একটা গ্লাস ভঙ্গের মাধ্যমে শাস্তি প্রদান করে।

জ্যাক এবং অন্যান্য শিকারীরা গান ধরে শূকরটিকে হত্যা কর। তার গলাকেটে ফেলে। তারপর তারা এই হত্যার জন্য একটি নাচের আয়োজন করে যেখানে মাউরিস শূকরের ভণিতা করে এবং অন্যান্যরা তাকে আক্রমণ করার অভিনয় করে। রালফ-জ্যাক এবং অন্যান্য শিকারীদের ব্যবহারের মাধ্যমে সতর্ক হয়ে যায় এবং পিগীর পরিপক্কতাকে তারিফ করতে শুরু করে।

সে একটি সভা ডাকে যেখানে সে অন্যান্য বালকদেরকে আগুন তৈরি কিংবা আশ্রয় তৈরির কাজে সাহায্য না করার জন্য তিরস্কার করে। সে বলে যে আগুনটি হচ্ছে এই দ্বীপে তাদের যুক্তির সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ জিনিস এবং ঘোষণা দেয় যে পর্বতটিই হচ্ছে একমাত্র জায়গা যেখানে আগুন থাকার দরকার আছে। রালফ বলে যে সে ভীত কিন্তু এখানে কোন যৌক্তিক কারণ নেই ভীত হবার। জ্যাক বলে যে, এই দ্বীপে ভয়ংকর কোন প্রাণী নেই যদিও কিছু ছোট বালকরা বিশ্বাস করে এখানে হিংস্র পশু রয়েছে। তারপর এক ছোট পিল বলে যে, সে একটি দুঃস্বপ্ন দেখেছে এবং যখন সে জেগে ওঠে সে দেখে কিছু একটি বৃক্ষের দিকে অগ্রসর হয়। সাইমন বলে যে, পিল সম্ভবত সাইমনকে দেখেছে কেননা, ঐ রাত্রে সাইমন জঙ্গলে হাঁটতেছিল। কিন্তু ছোট পিল পশুটাকে নিয়ে ভয় পেতে শুরু করল যা তারা ভূত বলে ধরে নিয়েছে।

পিগী এবং রালফ আরো একবার ঝগড়া করে কিন্তু যখন রালফ নিয়মের কথা বলে এবং তা বাস্তবায়নের প্রচেষ্টা নেয় পিগী বিদ্রোপভাবে জানতে চায় কেউ কি নিয়ম মানে কিনা। রালফ জানায় যে, এই নিয়মগুলোই তাদের আছে। জ্যাক তখন পশু শিকারের জন্য একটি যাত্রা শুরু কর পেছনে শুধু পিগী রালফ এবং সাইমন পড়ে থাকে। পিগী রালফকে সতর্ক করে যদি জ্যাক প্রধান হয় তবে বালকগুলো কখনো মুক্তি পাবে না। ঐ রাত্রে একজন বৈমানিক অবতরণ ছত্রে দ্বীপের নিচে পড়ে যায়। এবং সম্ভবত আঘাতের জন্য মারা যায়।

পরের দিন সকালে যখন জমজ স্যাম এবং এরিক আগুণ জ্বালানোর উপকরণ খুঁজতে গিয়ে বৈমানিককে খুঁজে পায় এবং তারা ভুলবশত তাকে পশু ভাবে। তারা হামাগুড়ি দিয়ে দ্বীপের নীচে নেমে আসে এবং রালফকে ডেকে তুলে। জ্যাক শিকারের জন্য ডাকে কিন্তু পিগী মনে করে তাদের সবার এক সাথে থাকা উচিত যেন হিংস্র পশুরা তাদের কাছে আসতে না পারে। জ্যাক দাবি করে যে শঙ্খটা এখন আর যৌক্তিক নয়। সে বালফের দিক দোলে এবং রালফ জ্যাককে দোষারোপ করে যে সে হয়ত মুক্ত হতে চায় না। রালফ পাহাড়ের চূড়ার আগুনে নতুন করে আগুনের ফুলকি দেয়ার পক্ষে থাকা সত্ত্বেও সে অন্যান্য শিকারীদের সাথে পশু শিকারে যাত্রা করে। তারা যখন দ্বীপের অন্য একটি দিকে যায় জ্যাক সমুদ্রের তীরে দূর্গ গড়ার ইচ্ছা পোষণ করে।

শিকারীরা যখন শিকার খুঁজতেছিল একটি বন্য শূকর জ্যাককে আক্রমণ করে তারপর জ্যাক ছুরি দিয়ে আঘাত করলে তা পালিয়ে যায়। শিকারীরা পুনরায় শূকরটিকে হত্যা কর তাদের সেই পুরনো গানের সাথে উন্নত তাই ফিরে যায়। রালফ মনে করে যে, পিগী এবং ছোট ওরা দ্বীপের ঐ পাশে বয়ে গেছে এবং সাইমন ফিরে যাবার কথা বলে যেন তাদেরকে বলে আসতে পারে যে, অন্যান্য ছেলেরা আজ রাতে ফিরবে না। রালফ বুঝতে পারে জ্যাক তাকে ঘৃণা করে এবং সে তার সাথে এ ব্যাপারে কথা বলে। জ্যাক রালফকে শিকারের প্রতি অনীহাকে কেন্দ্র করে তামাশা করে, সমালোচনা করে রালফকে নিয়ে। রালফ পিগীকে খুঁজতে আশ্রয়কেন্দ্রে ফিরে আসে এবং পিগীকে জানায় তারা পশুটিকে খুঁজে পেয়েছে কিন্তু পিগী তবুও সন্দেহাতীত থেকে যায়।

যেহেতু ছেলেরা লাঠি হাতে তাই রালফ শিকারীদের খারিজ করে দেয়। কিন্তু জ্যাক দাবি করে যে, রালফ শিকারীদেরকে কাপুরুষ ডেকেছে। জ্যাক অন্যান্য বালকদের উপর নিয়ন্ত্রণ নেওয়ার জন্য রালফকে প্রধানের পদ থেকে সরিয়ে দিতে চাইলে রালফ অন্যান্য সবার সমর্থন লাভ করলে জ্যাক পালিয়ে যায়। পিগী মতামত দেয় যে, যদি পশুরা তাদেরকে পর্বতচূড়ায় উঠতে বাঁধা দেয় তবে তাদেরকে সমুদ্রতীরেই আগুন জ্বালাতে হবে এবং যদি তারা একটু তাদের সাধারণ মেধার সাথে চিন্তা করে তবে তারা টিকে থাকতে পারবে। সাইমন তারা দূরে প্রাপ্ত খালি জায়গায় বসার জন্য ত্যাগ করে । জ্যাক দাবি করে যে, সে শিকারীদের প্রধান হবে এবং তারা যেখানে দূর্গ গড়ার কথা চিন্তা করেছিল সেখানে যাবে এবং একটি মাংস ভোজের আয়োজন করবে।

শিকারীরা একটি শূকর হত্যা করে এবং জ্যাক তার রক্ত নিয়ে মাউরিসের মুখে তা লেপে দেয়। তারপর তারা এটার মাথাটা কেটে একটি খুঁটিতে ঝুলিয়ে দেয় তাদের মাংস ভোজের জন্য। জ্যাক আশ্রয়কেন্দ্র হতে অনেক শিকারীকে নিয়ে আসে এবং সেখানে সে তার দলের জন্য অনেক বালককে আমন্ত্রণ জানায় এবং মাংসের সাথে সাথে শিকারের এবং মজা করার প্রস্তাব দেয়। রালফ এবং পিগী ব্যথিত হয়। সব ছেলেরাই জ্যাকের সাথে যুক্ত হয়। ইতিমধ্যে সাইমন দেখে যে, শিকারীরা শূকরের মাথাটা ফেলে গেছে। সে এটাকে ‘Lord of the Flies' বলে উপাধি দেয় যেহেতু এটার উপর অনেক পোকামাকড় উড়ছিল।

সে বিশ্বাস করে যে তার সাথে কথা বলেছে সে কত বড় বোকা তা বলেছে যার জন্য অন্যান্য সব বালকরা তাকে পাগল ভেবেছে। শূকরের মাথাটি দাবি করে যে, এটাই জন্তু এবং জন্তুদেরকে হত্যা ও শিকার করা যাবে এই ধারণাকে বিদ্রুপ করে। সাইমন পড়ে যায় এবং জ্ঞান হারায়। এবং যখন সে জ্ঞান ফিরে পায় এবং হতবাক হয়ে যায়। সে মৃত বৈমানিককে দেখতে পায় যাকে কিনা সকল ছেলেরা জন্তু বলে ধরে নিয়েছিল এবং সে বুঝতে এটা প্রকৃতপক্ষে কী। সে পর্বতের নিচে নেমে আসে কী ঘটেছে এ ব্যাপারে অন্যান্য বালকদের সতর্ক রালফ এবং পিগী যখন হ্রদের কাছে খেলছিল তারা সিদ্ধান্ত নেয় অন্যান্য বালকদেরকে খুঁজে বের করে বলবে যে অপ্রীতিকর কোন কিছুই ঘটেনি যখন শিকারীর ভনিতা করছিল। তারা যখন জ্যাককে পায় জ্যাক এবং রালফ দুজনের মধ্যে কে প্রধান হবে তা নিয়ে তারা তর্ক শুরু করে। যখন পিগী দাবি করে যে সে কথা বলবে কেননা শঙ্খটি তার ছিল জ্যাক বলে যে, দ্বীপে শঙ্খটি তার দিকে ছিল না।

বালকরা ভীত হয়ে গেল যখন রালফ জানায় যে একটি ঝড় আসন্ন। যখন ঝড় শুরু হল সাইমন জঙ্গল হতে দৌড়ে এসে জানায় যে পাহাড়ের চূড়ায় মৃত দেহ পড়ে আছে। সে এই জন্তু এই দৃষ্টিভঙ্গির ভিত্তিতে ছেলেরা সাইমনকে ভুল বুঝে এবং তাকে হত্যা করে। দ্বীপের অন্য প্রান্তে এসে রালফ এবং পিগী সাইমনের মৃত্যুর কথা বলে। তারা দুজনই হত্যাকাণ্ডে জড়িত কিন্তু তারা তাদের প্রচেষ্টাকে বিচার বিশ্লেষণ করার চেষ্টা করে যেহেতু তারা ভয় এবং স্বজাতবোধ এর মাধ্যমে উৎসাহিত হয়েছে। শুধুমাত্র চারজন বালক যারা কিনা জ্যাক এর দলে যায়নি তারা হল রালফ, পিগী এবং জমজ দুভাই এরিক স্যাম যারা আগুন তৈরিতে সাহায্য করে।

শিলার দূর্গে জ্যাক একজনকে ফাকে পেলে অন্যদেরকে ভয় দেখানোর মাধ্যমে অন্যান্য বালকদেরকে ও অনুপ্রবেশকারীদেরকে সতর্ক করে। যখন বিল জানতে চায় তারা কিভাবে আগুন জ্বালানোর কাজ শুরু করবে জ্যাক জানায় যে তারা অন্যান্য ছেলেদের তৈরি আগুন চুরি করবে। ইতিমধ্যে পিগী, রালফ এবং জমজ দুই ভাই আগুনটিকে চলমান রাখার চেষ্টা করে কিন্তু তারা দেখে যে, তাদের মাধ্যমে তা সম্ভব হচ্ছে না। তারা আশ্রয় কেন্দ্রে ঘুমাতে ফিরে আসে। রাতের বেলায় শিকারীরা চার বালকের উপর আক্রমণ করে। তারা তাদের সাথে সংগ্রাম করে কিন্তু ভালভাবেই আহত হয়। পিগী বুঝতে পারে কেন তাদের উপর আক্রমণ করা হয়েছে। তারা তার চশমা চুরি করতে চেয়েছিল।

আক্রমনের পর চার বালক পাহাড়ের দূর্গে যাবার পরিকল্পনা করে এবং জ্যাক সভ্য তা বলার ইচ্ছা পোষণ করে। তারা নিজেদের উপস্থাপনযোগ্য করার জন্য দলাইমলাই করে তারপর একদম সাধারণ স্কুল বালকদের পোষক পরিধান করে। যখন তারা পাহাড়ের দূর্গে পৌঁছায় রালফ শঙ্খের মাধ্যমে অন্যান্য ছেলেদের ডাকে। জ্যাক শিকার হতে ফিরে তাদেরকে একা থাকতে দেওয়ার কথা বলে রালফ এবং পিগীকে চলে যেতে বলে।

যখন জ্যাক রালফের ন্যায় বিচারের কথা শুনতে অস্বীকৃতি জানায় রালফ সকল বালকদেরকে রঙমাখা বোকা বলে আখ্যায়িত করে। জ্যাক এরিক এবং স্যামকে কারাগারে প্রেরণ করে এবং তাদেরকে আদেশ দেয়। পিগী জ্যাকের কাছে জানতে চায় যে, অলংকৃত ইন্ডিয়ান প্যাকেট হওয়া নাকি যৌক্তিক ঠিক একজন রালফ হওয়া উচিৎ কিন্তু রজার পিগীকে একটি পাথর নিক্ষেপ করে যা কিনা তাকে পাহাড় হতে সমুদ্রে ফেলে দেয়। এর প্রভাবে পিগী মারা যায় এবং জ্যাক আনন্দে শঙ্খটিকে চূড়মার করে দেয়। জ্যাক নিজেকে প্রধান হিসেবে ঘোষণা করে এবং রালফের দিকে তার থুথু ছুড়ে মারলে সে পালিয়ে যায়।

রালফ পাথুড়ে দূর্গের কাছেই আশ্রয় নেই যেখান হতে সে অন্যান্য বালকদের দেখতে পায়। যাদেরকে সে এখন আর সভ্য ইংলিশ বালক হিসাবে স্বীকার করে না বরং অসভ্য, বর্বর হিসেবে দেখে। সে জ্যাকের প্রবেশ পথে হামাগুড়ি দিতে দিতে যায় যেখানে জমজ ভাই এরিক এবং স্যাম এখন পাহাড়াদার হিসেবে রয়েছে। তারা তাকে কিছু মাংস দেয় এবং দ্রুত চলে যাবার জন্য বলে। যখন রালফ লুকিয়ে ছিল সে বুঝতে পারে অন্যান্য ছেলেরা পাহাড়ের নিচে দুলছে। রালফ তাকে শিকার করার চেষ্টা করতেছিল যেসব বালকরা তাদের সে কৌশলে পরিহার করে তারপর সে বুঝতে পারে যে তারা ধোঁয়া সৃষ্টির জন্য জঙ্গলটিকে আগুন দিচ্ছে যেন দ্বীপে তার জন্য আর কোন ফল খাওয়ার মত না থাকে।

তার জীবনের জন্য দৌড়ে রালফ সমুদ্র তীরে পতিত হয় যেখানে একজন নৌ অফিসার একটি জাহাজ নিয়ে পৌঁছায়। সে ভাবে বালকেরা শুধু খেলতাছে এবং সে তাদেরকে তিরস্কার করে তারা আরো সংঘবদ্ধ এবং দায়িত্বশীল আচরণের অধিকারী না হওয়ায় যা সাধারণত ব্রিটিশ রীতির উল্টো। যখন বালকেরা বাড়ি ফেরার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছে রালফ পিগীর মৃত্যুর জন্য কান্নাকাটি করে। সাথে সাথে বালকদের সরলতা শেষ হয়ে যাওয়ায় সে বিষণ্ণ।

Themes of the Novel

  1. Civilization vs Savagery
  2. Individualism vs Community
  3. The Nature of Evil
  4. Man vs Nature
  5. Dehumanization of Relationship
  6. The Loss of Innocence
  7. The Negative Consequences of War

Plot Structure of the Novel:

উপন্যাসের শুরু হতে শেষ পর্যন্ত গোল্ডিং মানুষের প্রকৃতিতে পড়ে যাওয়ার এবং তাদের সমকক্ষদের প্রতি তাদের যে মৌলিক অমানবিকতা তার চিত্রই তুলে ধরেছেন। উপন্যাসটি কয়েকটি বালককে দিয়ে শুরু হয় যারা কিনা বিধ্বস্তদের রেহাই দিতে চেয়েছিল এবং যুদ্ধের বর্বরতা হতে মুক্ত হতে চেয়েছিল।তারা একটি সুন্দর, উপসাগরীয় স্বর্গের মত দ্বীপে আটকা পড়ে। বালকরা এখানে নিয়ম-ক -কানুন এবং বড়দের কাছ থেকে দূরে থাকতে পেরে খুশি। কিন্তু তারা খুব শীঘ্রই তাদের ভাগ্যকে একটি দুঃস্বপ্নে পরিণত করে সভ্য হতে অসভ্যতে প্রত্যাবর্তন করার মাধ্যমে যে প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে তারা বর্বর হয়।

এবং তাদের দুজন সাথীকে হত্যা করে। অবশেষে একজন নৌ অফিসারের সাহায্যে তারা উদ্ধার হয় কিন্তু এই মুক্তি তাদের পূর্ণ মুক্তি নয়। তারা এমন একটি বিশ্বে ফিরে এসেছে যা কিনা যুদ্ধ বিধ্বস্ত আর তাই তাদেরকে টিকে থাকার জন্য তাদের সংগ্রাম চলমান রাখতে হবে। অধিকন্তু তারা তাদের শৈশবে ফিরে যেতে পারবে না। তারা আরো বুঝতে পারে যে, সভ্যতা হচ্ছে চিকন পাতলা তক্তার আবরন যা মানুষের ভূপাতিত চরিত্রকে ঢেকে রাখে। আইন এবং শাস্তি ছাড়াই ঠিক দ্বীপের মতই যেখানে বর্বরতা ও প্রাচীনতার বসবাস।

Lord of the Flies as a Fable:

গোল্ডিং তার বই 'The Hot Gate' এ জানিয়েছেন যে, তিনি উপকথার আকৃতি ব্যবহার করেছেন মূলত সত্যটা প্রকাশিত করার জন্য যা তিনি প্রত্যক্ষ করেছেন। উপকথা হচ্ছে এমন একটি সাহিত্যের শাখা যেখানে একটি শিক্ষামূলক চিত্র তুলে ধরা হয়। এই উপন্যাসেও গোল্ডিং এই উদ্দেশ্যকেই তুলে ধরেছেন। বালকগুলোর মধ্য দিয়ে তিনি মানুষের প্রতি যে বর্বরতা তা তুলে সাথে সাথে মানুষের সহজাত শয়তানের চরিত্রটিও। প্রকৃতপক্ষে, গোল্ডিং বলেন যে যেভাবে উৎপাদন করে ঠিক তেমনি মানুষ শয়তানকে উৎপাদন করে জন্ম দেয়। তিনি দেখিয়েছেন। দ্বীপে সভ্যতা ভেঙ্গে পড়েছে যা অরাজকতা এবং ভয়ের জন্ম দিয়েছে।

As a Religious Tale:

যেহেতু মানুষ একটি ভ্রষ্ট জাতি যে কিনা প্রতিনিয়ত তার আসল পাপের জন্য প্রায়শ্চিত করে তাই তার চরিত্রকে শয়তানের ভিত্তি দিয়ে চরিত্রায়ন করা হয়েছে। এই উপন্যাসে গোল্ডিং এইবার শয়তানের এবং কিভাবে এরা আত্মার সাথে সম্পর্ক করে ও পরিণাম দেয় তা নিয়ে সতর্ক। সমস্ত বই জুড়ে তিনি ভাল ও শয়তানের, দয়া ও নিষ্ঠুরতার, সভ্যতা ও বর্বরতার, অপরাধবোধ ও উদাসীনতার সাদৃশ্য-বৈসাদৃশ্য করেছেন। মানব সভ্যতার ঐতিহ্যের আলোকে রালফ এবং পিগীকে দিয়ে, শঙ্খটিকে তাদের কর্তৃত্বের প্রতীক হিসেবে এবং সভ্যতার শয়তানদেরকে জ্যাক এবং তার অন্যান্য শিকারীদেরকে রূপায়নের মাধ্যমে সাদৃশ্য-বৈসাদৃশ্যগুলো তুলে ধরেছেন।

জন্তুটিকে মানব জীবনের শয়তানের ভূমিকায় এবং সাইমন ও পিগীকে যৌক্তিকতার জন্য চিত্রায়িত করা হয়েছে। পাশাপাশি সাইমন দূরদৃষ্টি এবং মুক্তির প্রতীক। সে জন্তুটিকে দেখতে পেয়েছিল যে এটার অস্তিত্ব রয়েছে যা কিনা প্রতিটি মানুষের হৃদয়েই বাস করে। দূর্ভাগ্যবশত যখন সে এই সত্যটিকে বর্বরদের কাছে তুলে ধরতে চায় তাকে ক্রিস্টের ন্যায় তার জীবনকে উৎসর্গ করতে হয়। কিন্তু ব্যাপার হচ্ছে সাইমন বেঁচে যায় মানুষকে জীবন সম্পর্কে সত্যের তথ্য দেওয়ার জন্য, সত্যের ভালো ও খারাপ দিকটি তুলে ধরার জন্য।

As a Psychological Novel:

উপন্যাসটি মানুষের মৌলিক চরিত্র হিসেবে কাজ করে এবং গোল্ডিং এর মাধ্যমে যে চিত্র অংকিত হয়েছে তা অত্যন্ত নেতিবাচক। যখন শিশুরা যারা কিনা মানবজাতির প্রতিনিধি, তারা তাদের কর্তৃপক্ষের কাছ হতে দূরে থাকে কোন প্রকার আইন-কানুন ছাড়াই তখন তারা প্রাচীন ব্যবহারের দিকে ফিরে যায়। তারা তাদের নিজেদের অগণতান্ত্রিক নিয়ম-কানুন তৈরি করে এমনকি তারা তাদের নিজেদের দেবতা সৃষ্টি করে। গোল্ডিং মৌলিক মানবিক ব্যবহারের ব্যাপারে গুরুত্বপূর্ণ পাঠ দেন বালকগুলোর মধ্য দিয়ে।



লেখকের জীবনী ও কর্ম (Life and Work of William Golding)
জন্ম: William Golding ১৯শে সেপ্টেম্বর ১৯১১ সালে ইংল্যান্ডের নিউকুয়েতে জন্মগ্রহণ করেন।

পরিচিতি ও সাহিত্য কর্ম: William Golding একজন ব্রিটিশ উপন্যাসিক, নাট্যকার ও কবি ছিলেন। তিনি তার প্রথম উপন্যাস 'লর্ড অফ দ্য ফ্লাইস'-এর জন্য সর্বাধিক পরিচিত। তিনি তার জীবদ্দশায় আরও এগারটি উপন্যাস প্রবেশ করে যান। ১৯৮০ সালে তাকে রাইটস অফ প্যাসেজের জন্য বুকার পুরস্কার দেওয়া হয়। এটি তার সমুদ্র ট্রিলজি হয়ে প্রথম উপন্যাস, টু দ্য এন্ডস অফ দ্য আর্থ'। ১৯৮৩ সালে তিনি সাহিত্যে নোবেল পুরষ্কার পেয়েছিলেন। আর বর্তমানের উপন্যাসের কথা মনে হলেই William Golding এর নাম মনে পড়ার কথা।

মৃত্যু: তিনি ইংল্যান্ডে ১৯৯৩ সালে মারা যান।

Post a Comment

0Comments
Post a Comment (0)

#buttons=(Accept !) #days=(20)

Our website uses cookies to enhance your experience. Learn More
Accept !